অর্থ পাচার ও পাচারকারীদের চিহ্নিত করতে নির্দেশ

Published: 23 May 2022, 3:35 PM

পোস্ট ডেস্ক :


ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ, ধামাকা, আলেশা মার্ট, দারাজ, কিউকম, আলাদীনের প্রদীপ, দালাল প্লাসের মতো ই-কমার্স মার্কেটপ্লেসের মাধ্যমে কী পরিমাণ অর্থ পাচার হয়েছে তা নিরূপণ করতে এবং হয়ে থাকলে এর সঙ্গে কে বা কারা জড়িত তা চিহ্নিত করতে দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সেই সঙ্গে কার বা কাদের অবহেলায় ই-কমার্স মার্কেট প্লেসের গ্রাহকরা গুরুতর লোকসান ও ক্ষতির মুখে পড়েছে তাদের চিহ্নিত করতে সরকারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ সোমবার এসংক্রান্ত তিনটি রিটের ওপর শুনানির পর বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।

গত বছরের ২০ সেপ্টেম্বর অনলাইন বাণিজ্যের ক্ষেত্রে গ্রাহকদের স্বার্থ ও অধিকার রক্ষায় জাতীয় ডিজিটাল কমার্স নীতি অনুযায়ী একটি স্বাধীন ই-কমার্স নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠার নির্দেশনা চেয়ে রিট আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. আনোয়ারুল ইসলাম বাধন।

একই বছরের ২২ সেপ্টেম্বর দুই ই-কমার্স গ্রাহকের পক্ষে আরেকটি রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ হুমায়ন কবির পল্লব।
রিটে ইভ্যালি, আলেশা মার্ট, ই-অরেঞ্জ, ধামাকা, দারাজ, কিউকম, আলাদীনের প্রদীপ ও দালাল প্লাসের মতো ই-কমার্স মার্কেটপ্লেসের লাখ লাখ গ্রাহকের লোকসান ও গুরুতর আর্থিক ক্ষতি নির্ণয়ে সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত একজন বিচারপতির নেতৃত্বাধীন অনুসন্ধান কমিটি গঠনের নির্দেশনা চাওয়া হয়।