কোম্পানীগঞ্জে ত্রাণ নিয়ে কাড়াকাড়ি, পুলিশের লাঠিচার্জ

Published: 21 May 2022, 5:23 PM

সিলেট অফিস :


সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বন্যাকবলিত মানুষের মাঝে শনিবার (১৯ মে) ত্রাণ বিতরণ করেছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি। তবে তিনি ত্রাণ বিতরণ স্থল ত্যাগ করার পরপরই সেখানে ত্রাণ প্রত্যাশীদের মাঝে শুরু হয় কাড়াকাড়ি ও হট্টগোল।

শনিবার সকাল ১০টায় উপজেলার থানাবাজার পয়েন্টে এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

জানা আয়, মন্ত্রী ইমরান আহমদ শনিবার সকালে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সড়কপথে কোম্পানীগঞ্জ আসেন। এ সময় ১২০ পেকেট খাদ্যসামগ্রী নিয়ে আসেন তিনি। প্রতিটি ইউনিয়নের ২০ জন করে ৬ ইউনিয়নে ১২০ জনের জন্য ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে আসেন। কিন্তু মন্ত্রী ত্রাণ বিতরণ করবেন এমন খবর পেয়ে বন্যাকবলিত এলাকার প্রায় ৫শত মানুষের সমাগম হয় থানাবাজার নামক স্থানে। মন্ত্রী ৪-৫ জনকে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করে তিনি এখান থেকে চলে যান। মন্ত্রী যাওয়ার পরপরই সেখানে শুরু হয় ত্রাণ নিয়ে কাড়াকাড়ি। ধস্তাধস্তি করে অনেকেই ছিনিয়ে নেন ত্রাণের পেকেট। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে পুলিশলাঠিচার্জ করে। প্রায় ২০ মিনিট পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এদিকে, ত্রাণ না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরেছেন বেশিরভাগ বানভাসি মানুষ।

এ বিষয়ে উপজেলার ইছাকলস ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাজ্জাদুর রহমান সাজু ও পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিয়াদ আলী জানান, মন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে এক ইউনিয়নে ২০ জনকে ত্রাণ দেওয়ার তালিকা করা হয়। কিন্তু মানুষ জড়ো হন কয়েক শ। কাকে রেখে কাকে দিবো এই ত্রাণ? গ্রাম ও ওয়ার্ডে পর্যাপ্ত খাদ্যসামগ্রী দিলে এমন মারামারি ও অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটতো না।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লুসিকান্ত হাজং বলেন, আমরা আজকে (শনিবার) ত্রাণ দেওয়ার জন্য ২০০ জনের তালিকা করেছিলাম। মন্ত্রীকে দিয়ে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে আজ। ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। কিন্তু খবর পেয়ে আজ সেখানে তালিকার বাইরের লোকজন এসে হট্টগোল শুরু করেন। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসছে।