প্রচারণা শেষ, বিয়ানীবাজার পৌরসভা নির্বাচন বুধবার ।। ভোট হবে ইভিএমে
লন্ডন-আমেরিকার যুদ্ধে কে হাসছেন শেষ হাসি?

Published: 13 June 2022, 3:54 PM

১০ কেন্দ্রে ভোট দেবেন সাড়ে ২৭ হাজার ভোটার।। সকল কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ

এম. হাসানুল হক উজ্জ্বল


সিলেটের প্রবাসী অধ্যূষিত বিয়ানীবাজার পৌরসভার নির্বাচন আগামী ১৫ই জুন রোববার অনুষ্ঠিত হবে। এই পৌরসভার সাড়ে ২৭ হাজার ভোটার এবার প্রথম বারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এ লক্ষ্যে স্থানীয় নির্বাচন অফিস সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। সোমবার পরিক্ষামূলক ভাবে কেন্দ্রগুলোতে ইভিএম মেশিন পাঠিয়ে ভোটারদের এ সম্পর্কে ধারণা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এই পৌরসভার ১০টি ভোট কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে প্রশাসন।
বিয়ানীবাজার পৌরসভা ২০০১ সালে গঠিত হলেও এই পৌরসভায় টানা ১৭ বছর চলে প্রশাসক দিয়ে। পরে নির্বাচন হলে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হন। দ্বিতীয় ধাপের পৌরসভা নির্বাচনে এবার ১০ জন মেয়র প্রার্থী প্রদিদ্বন্ধিতা করছেন। পাশাপাশি সাধারণ সদস্য পদে ৪৮জন এবং মহিলা সদস্য পদে ১০ প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন।
সিলেটের গুরুত্বপর্ণ এই পৌরসভায় ১০জন মেয়র প্রার্থীর মধ্যে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থীসহ ৬জন প্রার্থী প্রবাসী এবং বাকী চারজন প্রার্থী বিভিন্ন পেশার সাথে জড়িত রয়েছেন। এখানে দলীয় প্রতিকে নির্বাচন করছেন সাবেক মেয়র আওয়ামীলীগ নেতা ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী মোঃ আব্দুস শুকুর (নৌকা), জাতীয় পার্টি নেতা ব্যবসায়ী মোঃ সুনাম উদ্দিন (লাঙ্গল), কমিউনিস্ট পার্টি নেতা এডভোকেট আবুল কাশেম (কাস্তে), আমেরিকা প্রবাসী ব্যবসায়ী আব্দুস সবুর (মোবাইল), আমেরিকা প্রবাসী, পেশায় ঠিকাদার ফারুকুল হক (চামচ), আমেরিকা প্রবাসী, পেশায় ঠিকাদার আব্দুল কুদ্দুস টিটু (হেলমেট), কানাডা প্রবাসী, পেশায় ব্যবসায়ী, আহবাব হোসেন (কম্পিউটার), যুক্তরাজ্য প্রবাসী অজি উদ্দিন (নারিকেল গাছ), প্রভাষক আব্দুস সামাদ (হেঙ্গার), সাবেক প্রশাসক, ব্যবসায়ী তফজ্জুল হোসেন (জগ) প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করছেন।
এবারের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর সাথে চতুরমুখি লড়াই হবে বলে ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানাগেছে। ভোটারদের ধারণা আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী আব্দুস শুকুরের সাথে লড়বেন মোবাইল প্রতিকের প্রার্থী আব্দুস সবুর, চামচ প্রতিকের প্রার্থী ফারুকুল হক ও জগ প্রতিকের প্রার্থী তফজ্জুল হোসেন। তাদের মধ্যে একজন ১৫ই জুনের নির্বাচনে শেষ হাসি হাসবেন।
আওয়ামীলীগ প্রার্থী আব্দুস শুকুর জানিয়েছেন, তার আমলে এই পৌরসভার চেহারা বদল হয়েছে। পৌরবাসী কাঙ্খিত উন্নয়ন পেয়েছেন। তিনি প্রবাসীদের বসবাসের উপযোগি পৌরসভা ও অসমাপ্ত কাজকে সমাপ্ত করার লক্ষ্যে নৌকা প্রতিকে ভোট দানের জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।
স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারুকুল হক জানিয়েছেন, বিয়ানীবাজার পৌরসভায় কোন উন্নয়ন হয়নি। পৌর এলাকার মানুষের জীবনমান উন্নয়ন ও কাঙ্খিত সেবা পেতে তাঁর প্রতিক চামচ মার্কায় ভোট দানের জন্য ভোটারদের প্রতি আহবান জানান তিনি।
মোবাইল মার্কা নিয়ে এই পৌরসভায় প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন আব্দুস সবুর। ভোটারদের আকৃষ্ট করতে তিনি সব সময়ই সরব ভাবে প্রচারণা চালিয়েছেন। পৌরসভা এলাকার উন্নয়নে তিনি নিবেদিত ভাবে কাজ করবেন বলে আশ^স্ত করেছেন। তিনি তাঁর প্রতিক মোবাইল মার্কায় ভোট দানের জন্য সকলের প্রতি আহবান জােিনয়ছেন।
এখানে জগ প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করছেন সাবেক ১৭ বছরের পৌর প্রশাসক মোঃ তফজ্জুল হোসেন। তিনি অতিত অভিজ্ঞতা থেকে বলেছেন, বিগত পাঁচ বছরে পৌরসভা এলাকায় কোন উন্নয়ন হয়নি। তাই পৌরবাসীর গলার ফাঁস ছুটাতে তিনি তাঁর জগ প্রতিকে ভোট দেওয়ার আহবান জানান।
হেঙ্গার প্রতিকের প্রার্থী প্রভাষক আব্দুস সামাদ বলেন, পৌরসভার উন্নয়নের স্বার্থে তাকে জনগণ তাঁর প্রতিকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন।
এদিকে উপজেলা নির্বাচন সৈয়দ কামাল আহমদ জানিয়েছেন, বিয়ানীবাজার পৌরসভা এলাকার ৯টি ভোট কেন্দ্রের সকল বুথে ইরৈকট্রনিক ভোটিং মেশিন (এভিএম) এর মাধ্যমে ভোট দান করবেন ভোটারগন। তিনি জানান, এবারের নির্বাচনে মোট ২৭ হাজার ৩শ’৬৯ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা রয়েছে। তার মধ্যে পুরুষ ১৩ হাজার ৬শ’ ২৫ জন এবং মহিলা ১৩ হাজার ৭শ’ ৪৪ জন। তার মধ্যে শ্রীধরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ৩৩৫৪ জন, কসবা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ২০০২ জন ভোটার, কসবা আদর্শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ৩৫৫৩ জন, খাসা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ২৬৬৭ জন, পঞ্চখন্ড সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ৩২৮৫ জন, বিয়ানীবাজার সরকারী কলেজ ভোট কেন্দ্রে ২০৪৪ জন, বিয়ানীবাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ১৯২৮ জন, খাসাড়ী পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ২৬০৩ জন, নিদনপুর-সুপাতলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ৩১৯৯ জন এবং নিদনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে২৬৩৪জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা রয়েছে।
বিয়ানীবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ হিল্লোল রায় জানিয়েছেন, বিয়ানীবাজার পৌরসভা নির্বাচন যাতে শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয় সে জন্য প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছেন। প্রতিটি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করে বাড়তি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।