বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর বেইজিং সফর, নজর রাখছে ভারত

Published: 9 July 2024

পোস্ট ডেস্ক :


বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত সোমবার থেকে চীনে চার দিনের সরকারি সফর শুরু করেছেন, পাঁচ বছরের মধ্যে এশিয়ান জায়ান্ট চীনে এটি তার প্রথম সফর। বেইজিংয়ে, তিনি চীনা নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন এবং বিলিয়ন ডলার মূল্যের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও ঋণ চুক্তিতে স্বাক্ষর করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। বাংলাদেশি মিডিয়া জানিয়েছে যে, উভয় পক্ষই বড় আকারের বিনিয়োগ, শুল্কমুক্ত বিধান এবং স্থানীয় মুদ্রায় বাণিজ্যের সুবিধার পাশাপাশি অন্যান্য বিষয় সম্পর্কিত ২০টিরও বেশি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করতে পারে। গত এক দশকে, বাংলাদেশ ক্রমবর্ধমানভাবে চীন ও ভারত উভয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে কারণ বেইজিং এবং নয়াদিল্লি উভয়ই এশিয়ায় তাদের প্রভাব বিস্তার করতে চায়। যদিও বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে গভীর ঐতিহাসিক, সাংস্কৃতিক ও ভাষাগত সম্পর্ক রয়েছে, চীন বাংলাদেশের বৃহত্তম বাণিজ্যিক অংশীদার এবং একটি প্রধান বিনিয়োগকারী দেশ।

কৌশলগত সম্পর্কের ভারসাম্য বজায় রাখা

বিশেষজ্ঞরা শেখ হাসিনার চীন সফরকে উভয় শক্তির সাথে ঢাকার কৌশলগত সম্পর্কের ভারসাম্য রক্ষার প্রচেষ্টা হিসেবে দেখছেন, তিস্তা নদীর ওপর একটি প্রকল্প প্রস্তাবের দিকে ইঙ্গিত করেছেন যা চীনের অর্থায়নে হবে। তথাকথিত তিস্তা নদী সমন্বিত ব্যবস্থাপনা ও পুনরুদ্ধার প্রকল্পের পেছনে চীন ১ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে চলেছে। কিন্তু তিস্তা নদীটি ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে প্রবাহিত এবং ড্রেজিং ও বাঁধ নির্মাণের পরিকল্পনার কারণে নয়াদিল্লির সঙ্গে বিরোধ সৃষ্টি হতে পারে। ভারতের শিলিগুড়ি করিডোর, যাকে প্রায়ই চিকেন নেক বলা হয়, প্রস্তাবিত প্রকল্প সাইটের কাছাকাছি অবস্থিত। এটি একটি ভূ-রাজনৈতিকভাবে সংবেদনশীল ২০-২২ কিলোমিটারের সংকীর্ণ পথ যা উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলোকে ভারতের বাকি অংশের সাথে সংযুক্ত করে। ভারতের আশঙ্কা, বাংলাদেশের সঙ্গে উন্নয়ন কাজের আড়ালে করিডোরের কাছে চীন তার উপস্থিতি দৃঢ় করতে পারে।

নয়াদিল্লি সম্প্রতি এই প্রকল্পে অংশগ্রহণের আগ্রহ প্রকাশ করেছে এবং বিস্তারিত আলোচনার জন্য ঢাকায় একটি কারিগরি দল পাঠানোর পরিকল্পনা করছে। মুন্সী ফয়েজ আহমেদ, যিনি ২০০৭ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত চীনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন, তিনি বলেন, ঢাকার উচিত একটি ভারসাম্যপূর্ণ পন্থা অবলম্বন করা। তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ‘প্রত্যেক দেশের নিজস্ব চাহিদা আছে এবং আমাদের তা স্বীকার করতে হবে। তিস্তা প্রকল্পটি যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যদি কিছু ক্ষেত্রে ভারতকে এবং অন্য ক্ষেত্রে চীনকে যুক্ত করি, তাহলে সমস্যা হবার কথা নয়।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ তার স্বার্থের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেবে।
আঞ্চলিক প্রভাবের জন্য চীন-ভারত লড়াই
ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চলে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তারের জন্য চীন ও ভারত ক্রমশ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। বেইজিং সক্রিয়ভাবে পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার এবং জিবুতির মতো দেশে বন্দরগুলোর জন্য সক্রিয়ভাবে অধিকার রক্ষা করছে এবং মালদ্বীপ ও বাংলাদেশে বিনিয়োগের প্রস্তাব করছে। এটি নয়াদিল্লিতে উল্লেখযোগ্য উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে। চীনের পদক্ষেপের সাথে ভারসাম্য রক্ষার জন্য, ভারত ইরানের চাবাহার বন্দর পরিচালনার অধিকার অর্জন করেছে এবং সম্প্রতি মিয়ানমারের সিতওয়ে বন্দর পরিচালনার অধিকার পেয়েছে। ভারত বাংলাদেশের মোংলা বন্দর পরিচালনা এবং সেখানে একটি নতুন টার্মিনাল নির্মাণেরও চেষ্টা করছে বলে জানা গেছে। বাংলাদেশের একজন বিশেষজ্ঞ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক আলী রীয়াজ মনে করেন, ভারত ও চীনের মধ্যে ক্রমবর্ধমান ভূ-রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিতা ঢাকাকে একটি কঠিন অবস্থানে ফেলেছে। তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘উভয় পক্ষই মূলত তাদের জাতীয় স্বার্থকে মাথায় রেখে ভূ-রাজনৈতিক ও কৌশলগত স্বার্থ রক্ষার জন্য বাংলাদেশকে এ ধরনের প্রস্তাব দিচ্ছে। এটি অর্থনৈতিক বিরোধের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে না, এটি অনিবার্যভাবে একটি রাজনৈতিক সংঘাতে পরিণত হবে। বাংলাদেশ যে সচেতনভাবে এই সংঘাতে প্রবেশ করছে তা উদ্বেগজনক।’

বাণিজ্য ও আর্থিক সম্পর্ক বন্ধ করুন

শেখ হাসিনার সফর নিয়ে আশার আলো থাকলেও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশ ও চীন ইতিমধ্যেই বিলিয়ন ডলার মূল্যের অবকাঠামো চুক্তি করেছে। কিছু পর্যবেক্ষক ইতিমধ্যেই সতর্ক করছেন যে, চীনের অর্থের উপর নির্ভরশীলতা ঢাকাকে বেইজিংয়ের কাছে আবদ্ধ করে রাখবে। গত সাত বছরে বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ দ্বিগুণ বেড়েছে, যা ২০১৬-১৭ সালের প্রায় ৪৫ বিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ২০২৩-২০২৪ সালে ১০০ বিলিয়ন ডলারের বেশি হয়েছে। এই নতুন ঋণের বেশির ভাগই বড় অবকাঠামো নির্মাণ, বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে ব্যয় করা হয়। শেখ হাসিনার চীন সফরের ফলে বাংলাদেশের জন্য ২০ বিলিয়ন ডলারের অতিরিক্ত ঋণ নিশ্চিত হতে পারে, যার মধ্যে ১৫ বিলিয়ন ডলার অবকাঠামো প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে। অবশিষ্টাংশ চীন থেকে আমদানির জন্য অর্থ প্রদানের সুবিধা প্রদান করবে। অর্থনীতিবিদ জাহিদ হুসেন বিশ্বাস করেন যে, বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ-টু-জিডিপি অনুপাত এখনও তার অর্থনীতির আকারের তুলনায় নিয়ন্ত্রণযোগ্য পর্যায়ে রয়েছে। একইসঙ্গে, তিনি সতর্ক করেছেন যে বাংলাদেশ তার রপ্তানি বৃদ্ধি এবং বৈদেশিক রেমিটেন্স বৃদ্ধি নিশ্চিত না করলে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে। হুসেন ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, এই আকারের একটি ঋণ কোনো শর্ত ছাড়াই দেয়া হবে এটা ভাবার কোনো কারণ নেই । ইস্যু হলো সরকার বিনিময়ে কী দিতে পারে। ঋণ দেয়ার সময় চীন সাধারণত কোন কোম্পানির কাছ থেকে পণ্য সংগ্রহ করবে তা নির্ধারণ করে। এই ধরনের ক্ষেত্রে, প্রতিযোগিতামূলক বিডিংয়ের জন্য কোনও জায়গা নেই। যদি এমন একটি শর্ত বিদ্যমান থাকে, তাহলে সবচেয়ে সাশ্রয়ী মূল্যে সর্বোচ্চ মানের পণ্য অর্জনের সুযোগ থাকবে না।

ঋণের ফাঁদ?
সমালোচকরা শ্রীলঙ্কার অভিজ্ঞতার দিকেও ইঙ্গিত করেছেন, যেখানে কলম্বোকে তার ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ার পরে ৯৯ বছরের ইজারা নিয়ে তার দক্ষিণের হাম্বানটোটা বন্দরের নিয়ন্ত্রণ চীনকে ছেড়ে দিতে হয়েছিল। তবে সাবেক কূটনীতিক ফয়েজ আহমদ মনে করেন, বাংলাদেশের পরিস্থিতি শ্রীলঙ্কার মতো হবে না। তিনি বলেছেন, ‘ঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে যেকোনো দেশ ঝুঁকি নিতে প্রস্তুত থাকে। বেইজিং, বেশ কয়েকবার এমনকি মোট ঋণের এক তৃতীয়াংশ মওকুফ করেছে।শ্রীলঙ্কার ক্ষেত্রে বিষয়টা অন্যরকম। ঋণ নেয়ার আগে আপনি যদি আপনার যথাযথ দায়িত্ব পালন না করেন, তাহলে আপনি নিজেকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলবেন। এক্ষেত্রে চীনের দিকে আঙুল তোলা ঠিক নয়।’ রীয়াজ অবশ্য জোর দিয়েছিলেন যে, ‘বাংলাদেশকে সতর্ক থাকতে হবে। বাংলাদেশ সরকারকে তার জনগণের কাছে স্বচ্ছ হতে হবে। আমাদের জানতে হবে বাংলাদেশ তার ভবিষ্যৎ চীনের কাছে বন্ধক রাখছে কিনা।’