আফ্রিকার বর্ষসেরা ফুটবলার মানে

Published: 22 July 2022, 7:31 AM

পোস্ট ডেস্ক :


মিশরকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো আফ্রিকান কাপ অব নেশনস জেতে সেনেগাল। গোটা টুর্নামেন্টে দারুণ ছন্দে ছিলেন দলটির সেরা তারকা সাদিও মানে। তার গোলেই ফাইনালে মিশরকে হারিয়ে শিরোপা জেতে সেনেগাল। এর দেড় মাস পর মানের গোলেই ফের মিশরকে হারিয়ে বিশ্বকাপের টিকিট পায় সেনেগাল। দ্যুতি ছড়ানো পারফরম্যান্সের স্বীকৃতি পেলেন মানে। হলেন আফ্রিকার বর্ষসেরা খেলোয়াড়।
সেরা হওয়ার লড়াইয়ে মানে পেছনে ফেলেছেন তার সাবেক ক্লাব লিভারপুলের সতীর্থ মোহাম্মদ সালাহ ও চেলসি গোলরক্ষক এদুয়ার্দো মেন্ডিকে। এ নিয়ে দু’বার আফ্রিকার বর্ষসেরা ফুটবলার হলেন মানে। ২০১৯ সালে প্রথমবার পুরস্কারটি জেতেন তিনি। করোনাভাইরাসের কারণে টানা দু’বছর দেয়া হয়নি এই পুরস্কার।
ষষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে আফ্রিকার বর্ষসেরার পুরস্কার দ্বিতীয়বার জিতলেন মানে। এর আগে পুরস্কারটি দু’বার করে জিতেছেন দিদিয়ের দ্রগবা, রজার মিলা, নওয়ানকো কানু, এল হাজি দিউফ ও মোহাম্মদ সালাহ।

তিনবার আফ্রিকার বর্ষসেরার পুরস্কার জেতার কীর্তি রয়েছে আবেদি পেলে ও জর্জ উইয়াহর। একমাত্র ফুটবলার হিসেবে চারবার আফ্রিকার বর্ষসেরার খেতাব জিতেছেন বার্সেলোনার সাবেক তারকা স্যামুয়েল ইতো।
মৌসুম শেষে লিভারপুল ছেড়ে বায়ার্ন মিউনিখে যোগ দিয়েছেন সাদিও মানে। স্কাই স্পোর্টসের খবর, চুক্তির মেয়াদ নবায়ন প্রসঙ্গে সালাহর মতো প্রাধান্য না পাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নেন সেনেগালিজ তারকা। তবে মানে জানালেন, সালাহর সঙ্গে ব্যক্তিগত কোনো দ্বৈরথ নেই তার; রয়েছে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। বর্ষসেরার পুরস্কার নিয়ে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মানে বলেন, ‘লোকে অনেক সময় বলে, সালাহর সঙ্গে আমার প্রতিদ্বন্দ্বিতা রয়েছে। কিন্তু সত্যি বলতে, আমি মনে করি না কোনো খেলোয়াড়ের সঙ্গে আমার দ্বৈরথ আছে। আমাদের মধ্যে ভালো একটা সম্পর্ক রয়েছে। আমরা একে অপরকে খুদে বার্তা পাঠাই। সংবাদমাধ্যম অনেক সময় বাড়িয়ে বলে। শুধু একজন খেলোয়াড় নয়, আমার সবার সঙ্গেই ভালো সম্পর্ক।’