বিভক্ত হয়ে পড়েছেন শ্রীলংকার বিক্ষোভকারীরা

Published: 1 August 2022, 5:54 PM

পোস্ট ডেস্ক :


শ্রীলংকার সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে কলম্বোর ‘গালে ফেস গ্রিন’ নামক একটি স্থানে জড়ো হন বিক্ষোভকারীরা। সেখানে তাঁবু টানিয়ে অবস্থান নেন তারা।

তাদের বিক্ষোভের মুখে সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসে, সাবেক প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে এবং তাদের ভাই ও আরেক মন্ত্রী ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হন।

তবে বর্তমানে সেই ‘গালে ফেস গ্রিনে’ অবস্থান করার বিষয়টি নিয়ে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন বিক্ষোভকারীরা।

প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে পদত্যাগ করার পরও তারা সেখানে অবস্থান করছিলেন কারণ বর্তমান প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহেরও পদত্যাগের দাবি জানিয়ে আসছেন তারা।

কিন্তু রনিল বিক্ষোভকারীদের ওপর কঠোর হওয়ার পর, সেনাবাহিনীর সদস্যরা সেখানে অভিযান চালানোর পর এবং আন্দোলনকারী বেশ কয়েকজন নেতাকে গ্রেফতারের পর অনেকেই বিক্ষোভের স্থান থেকে চলে যান।

তবে কয়েকজন এখনো রয়ে গেছেন। তাদের ভাষ্য বর্তমান যে রাজনীতিবিদরা দেশের শাসনভার চালাচ্ছেন তাদের সবার সরে যেতে হবে। নতুন করে সবকিছু শুরু করতে হবে।

বেশিরভাগই চলে গেছেন নিরাপত্তা বাহিনী দমন-নিপীড়ন শুরু করার পর।

গণমাধ্যম আল জাজিরাকে একজন বিক্ষোভকারী জানিয়েছেন, গ্রেফতার এড়াতে অনেকে গা ঢাকা দিয়েছেন। কিন্তু তাদের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের লোকজনদের এখন হয়রানি করা হচ্ছে।

এদিকে শ্রীলংকার সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে ‘গালে ফেস গ্রিন’ স্থানটি রাজধানী কলম্বোর প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। তাছাড়া এটি একটি পর্যটন কেন্দ্রও। দীর্ঘ সময় সময় ধরে আন্দোলন চলার কারণে এর প্রভাব অর্থনীতি এবং পর্যটন খাতের ওপর পড়ছে। ফলে জায়গাটি খালি করে দিতে হবে।