ফ্রান্স, ইতালির সীমান্ত অঞ্চলের বন্যায় ৭ জনের প্রাণহানি

Published: 6 October 2020, 8:21 AM

পোস্ট ডেস্ক : ফ্রান্স ও ইতালির সীমান্ত অঞ্চলে একটি ঝড় আঘাত হানার পর রেকর্ড বৃষ্টিপাতে ব্যাপক বন্যা সৃষ্টি হয়েছে। এতে এখন পর্যন্ত সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এখনো নিখোঁজ রয়েছে ২০ জন মানুষ।


বন্যায় অনেক রাস্তা ভেঙে গেছে আর বহু বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে ওই অঞ্চলের কর্তৃপক্ষ। অ্যালেক্স নামের ঝড়টির তাণ্ডবে ফ্রেঞ্চ রিভিয়েরা অঞ্চলের নিস শহরের আশপাশের বেশ কয়েকটি গ্রামে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
নিসের মেয়র খ্রিশ্চ এস্থুজি হেলিকপ্টারযোগে সবচেয়ে দুর্গত এলাকাগুলো পরিদর্শন করে এসে জানিয়েছেন, ওই এলাকাগুলোতে ১০০ বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। রাস্তাগুলো ও শতাধিক বাড়ি ভেসে গেছে আর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
দুর্গত এলাকাগুলো পরিদর্শন করে যাওয়ার পর এক সংবাদ সম্মেলনে ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী জঁ ক্যাসতেক্স বলেছেন, ‘আজ আমি যা দেখেছি তাতে অত্যন্ত মর্মাহত হয়েছি।’ মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি। গণমাধ্যমে আসা ছবিতে দেখা গেছে, উভয় দেশে বন্যার পানির তোড়ে রাস্তা ও সেতু ধসে পড়েছে এবং অনেকগুলো নদীর পানি তীর উপচে আশপাশের এলাকায় প্রবেশ করেছে।
পিদমন্ত অঞ্চলের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সুইজারল্যান্ড সীমান্তের নিকটবর্তী সাম্বুগেত্তো শহরে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৬৩০ মিলিমিটার (২৪ দশমিক ৮ ইঞ্চি) বৃষ্টিপাত হয়েছে। পিদমন্ত অঞ্চলের প্রধান আলবার্তো চিরিয়ো অঞ্চলটিতে জরুরি অবস্থা জারির জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। পো নদীর পানির উচ্চতা এক দিনে ৩ মিটার (৯ দশমিক ৮৪ ফুট) বেড়ে গেছে।
ফ্রান্স জানিয়েছে, সা-মাখতা-ভিজুবি এলাকায় ২৪ ঘণ্টায় ৫০০ মিলিমিটারেরও (১৯ দশমিক ৬৯ ইঞ্চি) বেশি এবং অন্যান্য কয়েকটি শহরে প্রায় ৪০০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এই পরিমাণ বৃষ্টি বছরের এই সময়ের প্রায় তিন মাসেরও বেশি সময়ের বৃষ্টিপাতের সমান বলে জানিয়েছে তা