যুক্তরাষ্ট্রকে ‘কোল্ড ওয়ার’ মানসিকতা থেকে সরে আসার আহ্বান চীনের

Published: 7 October 2020, 11:07 AM

পোস্ট ডেস্ক : দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পরই প্রভাব বলয় বিস্তারের রাজনীতিকে কেন্দ্র করে স্নায়ুযুদ্ধের সূচনা হয়েছিল। সাম্প্রতিক সময়ে চীন-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কের ক্ষেত্রে এমন কিছু ঘটনা ঘটেছে, যাকে বিশ্লেষকরা নতুন স্নায়ুযুদ্ধের সূচনা বলে ভাবছেন। ওই সময় যুক্তরাষ্ট্রের টার্গেট ছিল সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন। ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে গেলে ও সমাজতন্ত্রের ‘অবসান’ ঘটলে পরিসমাপ্তি ঘটেছিল স্নায়ুযুদ্ধের।

বুধবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র সচিব মাইক পম্পেওকে রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব বন্ধ করা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে চীনের বিরুদ্ধে সুপ্ত আক্রমণ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছে চীন।

মঙ্গলবার জাপান সফরে চীনের আঞ্চলিক প্রভাব মোকাবেলায় অস্ট্রেলিয়া, ভারত এবং জাপানের কাছে সহযোগিতা চেয়ে আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্র সচিব পম্পেও।

জাপানের চীনা দূতাবাস একটি বিবৃতিতে বলেছে, “পম্পেও চীন সম্পর্কে বার বার মিথ্যা কথা বলেছে এবং খুব বাজে ভাবে রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব সৃষ্টি করেছে।”

তারা আরো বলেছেন, “আমরা আবারও যুক্তরাষ্ট্রকে তার স্নায়ু যুদ্ধের মানসিকতা এবং চীনের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক অভিযোগ বন্ধ ও চীনের সাথে গঠনমূলক আচরণ করার আহ্বান জানিয়েছি।”

হংকংয়ের ব্যাপটিস্ট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক জ্যঁ পিয়ের সেবাস্টিয়ান টাইমস পত্রিকাকে বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন নতুন এক ধরণের শীতল যুদ্ধের মুখোমুখি হয়েছে।’

জাপান, ভারত এবং অস্ট্রেলিয়ার কোয়াড সহ যে দেশগুলির সাথে চীনের বাণিজ্যিক সম্পর্ক ভালো তাদের কাছে চীনের প্রভাবের বিরুদ্ধে মন্তব্য করায় সংবেদনশীল ভাবে বিষয়টি দেখছে চীন।

 

বেইজিং ভিত্তিক গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর চায়না অ্যান্ড গ্লোবালাইজেশনের প্রেসিডেন্ট ওয়াং হুহাইওর মতে, ১৯৭৯ সালে দুই দেশের মধ্যে পুরোমাত্রায় কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠান পর পারস্পরিক বোঝাপড়া কখনো এত খারাপ হয়নি,‘আমরা একটি স্নায়ু যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে।’