তিস্তা বাঁধ খুলে দিয়েছে ভারত, দেশের ৫ জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

Published: 20 October 2021, 7:21 AM

বিশেষ সংবাদদাতা :


ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলের কারণে গজলডোব পয়েন্টের সবকটি বাধ খুলে দিয়েছে ভারত। এতে প্রবল বেগে বাংলাদেশে ঢুকছে বানের পানি।

তিস্তার পানি দোয়ানি পয়েন্টে বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানির তোড়ে ভেঙে গেছে তিস্তা ব্যারাজের ‘ফ্লাট বাইপাস’ সড়ক। আজ সকাল ৯টায় ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানিপ্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫৩ দশমিক ২০ সেন্টিমিটার, যা বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার (স্বাভাবিক ৫২ দশমিক ৬০ সেন্টিমিটার) ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এদিকে ফ্লাট বাইপাস ভেঙে যাওয়ায় লালমনিরহাটের সঙ্গে নীলফামারী জেলার সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

স্থানীয়রা জানান, ভোর থেকে পানি বাড়তে শুরু করলে তিস্তা ব্যারাজের কয়েকটি গেট বন্ধ করে দেয়। পরে তিস্তা ব্যারাজের ফ্লাট বাইপাস সড়কের ওপর দিয়ে পানি চলাচল করলে সেটি ভেঙে যায়। তিস্তার পানিবৃদ্ধির ফলে হাটখোলা সড়কের পাশে পানি আসা শুরু করেছে।

এ ছাড়া হাতীবান্ধা থেকে বড়খাতার বাইপাস সড়কের তালেব মোড় এলাকার সড়কটিতে পানি ছুঁইছুঁই করছে। এ ভাঙনের ফলে এরই মধ্যে ওই এলাকার ২০০টি ঘরবাড়ি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে।
জানা যায়, জেলার ৫টি উপজেলার ভোটমারী, তুষভান্ডারের আমিনগঞ্জ, কাকিনা, পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম, হাতীবান্ধার সানিয়াজান, গড্ডিমারী, সিন্দুর্না, পাটিকাপাড়া, সিংগিমারী, আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা, পলাশী, সদর উপজেলার খুনিয়াগাছ, রাজপুর, গোকুণ্ডা, ইউনিয়নের তিস্তাতীরবর্তী নিম্নাঞ্চলের প্রায় পাঁচ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। অনেকের ফসলের ক্ষেত বন্যার পানিতে ডুবে গেছে। ফসলহানির শঙ্কায় এখন চিন্তিত কৃষকরা। পরিবারগুলো শিশু, বৃদ্ধ ও গবাদি পশুপাখি নিয়ে পড়েছে চরম বিপাকে।

তিস্তাপাড়ের লোকজনের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তিস্তা নদীর ভয়ংকর রূপ আর গর্জনে পানিবন্দি লোকজনের চোখে ঘুম নেই। তারা এখন বিশুদ্ধ পানি ও খাবার-সংকটে ভুগছেন।

  • 47
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    47
    Shares