শেষ পাতে দই খাওয়ার আগে ভাবুন

Published: 4 June 2021, 5:47 PM

পোস্ট ডেস্ক :


গ্রীষ্মের এই রৌদ্রতপ্ত দিনে ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা এক বাটি দই দিতে পারে রসনা তৃপ্তি। অনেকেরই শেষ পাতে একটু দই না হলে চলে না। খাবার দ্রুত হজমে সাহায্য করে দই। দইয়ে থাকা ল্যাকটোজ, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন বি-টু, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম স্বাস্থ্যের পক্ষে দারুণ উপকারী।

তবে দইয়ের সাথে কোনো কোনো খাবার নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া ফেলতে পারে শরীরে। জেনে নিন দইয়ের সাথে যা খাবেন না।

পেঁয়াজ

টক দই দিয়ে তৈরি রায়তা অনেকেরই পছন্দের খাবার। তবে রায়তা বানানোর সময় ভুলেও দইয়ের সাথে পেঁয়াজ দেবেন না। দই আর পেঁয়াজ বিক্রিয়া করে অ্যালার্জি, ত্বকের সমস্যা, অ্যাজমার মতো মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকির কারণ হতে পারে।

মাছ

মাছে-ভাতে বাঙালির মাছের সাথে দই খাওয়ার প্রবণতা রয়েছে। ভোজনরসিক বাঙালি গরম ভাতে পাতে তুলে নেন দই দিয়ে রান্না করা মাছের কালিয়া, কোফতা, দই-চিংড়ি বা ইলিশ। ভর পেট খেয়ে সব শেষে খান এক বাটি দই। কিন্তু এভাবে দই আর মাছ এক সাথে খেলে পড়তে পারেন স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে। দই আর মাছ-এই দুই খাবারেই আছে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন। তাই একসঙ্গে খেলে হতে পারে হজমে সমস্যা, পেট ব্যথা।

দুধ

দই তৈরির মূল উপাদান দুধ হলেও দই আর দুধ কখনোই একসঙ্গে খাওয়া উচিত নয়। এতে ডায়রিয়া, অ্যাসিডিটি, বমিভাব, পেট ফাঁপার মতে শারীরিক সমস্যা হতে পারে।

তৈলাক্ত খাবার

তেল দিয়ে ভাজা খাবারের সঙ্গে একদমই দই খাবেন না। এতে হজম শক্তি কমে যায়।

আম

এখন বাজারে প্রচুর পাকা আম পাওয়া যাচ্ছে। আমের সাথে ভুলেও দই মিশিয়ে খাবেন না। কারণ দই আর আম এক সাথে শরীরে ফেলতে পারে বিরূপ প্রভাব। এতে চামড়ায় অ্যালার্জি হতে পারে। হতে পারে হজমে সমস্যা, এমনকি পাকস্থলীতে বিষক্রিয়াও।

  • 29
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    29
    Shares