বাংলাদেশী টিচার্স এসোসিয়েশন ইউকে’র কমিটি গঠন

Published: 18 July 2022, 8:01 AM

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :

১৬ ই জুলাই ২০২২ সালে স্থানীয় লন্ডন এন্টারপ্রাইজ একাডেমিতে বাংলাদেশী টিচার্স এসোসিয়েশন এর দিবার্ষিক সাধারণ সভা ও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতি মোহাম্মদ আবু হোসেনের সভাপতিত্বে ও সিরাজুল বাসিত চৌধুরী ও ডক্টর রোয়াব উদ্দিন এর যৌথ সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টাওয়ার হ্যামলেটস এর এক্সিকিউটিভ মেয়র লুৎফুর রহমান, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের ডেপুটি হাইকমিশনার এ এফ এম জাহিদুল ইসলাম, ঢাকা ইউনিভার্সিটি এলামনাই ইউকে’র সভাপতি দেওয়ান গৌস সুলতান ও কামরিয়া ইউনিভার্সিটির প্রিন্সিপাল লিড ফারাহ ইব্রাহিম।


প্রধান অতিথি এক্সিকিউটিভ মেয়র লুৎফুর রহমান তার বক্তব্যে টাওয়ার হ্যামলেটসে শিক্ষা ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তনে প্রাধান্য দিবেন বলে পুনর্ব্যক্ত করেন। সেকেন্ডারি স্কুলে
ফ্রিমিল, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-ছাত্রীদের বাৎসরিকতা অনুদান চালু করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন। তাছাড়া তিনি বলেন, নিউহাম সহ অনেক বারাই শিক্ষা ক্ষেত্রে টাওয়ার হামলেটসের অনেক পেছনে ছিল। কিন্তু আজ নিউহাম আমাদের উপরে চলে গেছে। তাদের ছেলেমেয়েরা ক্যামব্রিজ অক্সফোর্ডে স্থান করে নিচ্ছে । এ লেবেলের ক্ষেত্রে টাওয়ার হ্যামলেটস স্কুলগুলো কেন ভালো করবে না তা খতিয়ে দেখার জন্য তিনি অফিসারদের ইতিমধ্যে নির্দেশ দিয়েছেন।

সভাপতি আবু হোসেন তার বক্তব্যে উল্লেখ করে বলেন, আমাদের অর্জন অনেক। বাংলাদেশী টিচার্স এসোসিয়েশনের শিক্ষা আন্দোলনের ফলে আজ প্রতিটি পরিবারে গ্রাজুয়েট এবং বিভিন্ন পেশায় বাঙালিদের অবস্থান রয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় বি টি এ কিছুদিন আগে একটি জরিপ পরিচালনা করে স্টেট স্কুলগুলোতে বাঙালি শিক্ষকদের পরিমাণ জানার জন্য। তাতে দেখা যায় ইনার লন্ডন স্কুলগুলোতে অনেক বাঙালি শিক্ষক শিক্ষিকা কাজ করতেছেন। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি অত্যন্ত নগণ্য পরিমান হেড টিচার, প্রিন্সিপাল , ডেপুটি হ্যাড টিচার অথবা সিনিয়র ম্যানেজমেন্ট এ বাঙ্গালীদের অবস্থান রয়েছে।
তিনি প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, বাংলাদেশ টিচার্স এসোসিয়েশন নতুন প্রজন্মের শিক্ষকদের স্বাগতম এবং অনুপ্রাণিত করে বাঙালির মূল যোগসূত্র ( root connection) হিসেবে কাজ করে যাবে।

কামবরিয়া ইউনিভার্সিটি প্রিন্সিপাল প্রধান ফারাহ ইব্রাহিম বি টি এর সাথে এক যুগে কাজ করে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন । তিনি বলেন, কামরিয়া ইউনিভার্সিটি থেকে পি জি সি ই পাস করার আশি ভাগ ছাত্রছাত্রীই বাঙালি বংশোদ্ভুত।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ডেপুটি মেয়র মাইয়োম তালুকদার, এন্টারপ্রাইজ একাডেমি প্রিন্সিপাল আশিদ আলী, লন্ডনপার্ক স্কুলের এ- লেভেল এর ডাইরেক্টর আয়েশা মিয়া, কোষাধ্যক্ষ মিসবাহ উদ্দিন আহমেদ, কাউন্সিলর ইকবাল হোসেন, রেহানা রহমান, মাহবুব হোসেন ও আব্দুল মুক্তাদির শামীম ।

সভার প্রথম পর্বে সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল বাসিত চৌধুরী তার বি টি এ র এর কার্যাবলীর উপর তার সম্পাদকীয় রিপোর্ট পেশ করেন এবং মিসবাহ আহমেদ ফাইন্যান্স রিপোর্ট পেশ করেন।

উক্ত সভায় শাহ ফারুক আহমেদ টিচার্স এসোসিয়েশনের নামকরণের পরিবর্তনে একটি মোশন আনয়ন করেন। মোশনটি হল “বাংলাদেশ টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন ইউকের” নামের পূর্বে “ব্রিটিশ” শব্দটি যোগ করা। নতুন নাম করন করা হবে ” ব্রিটিশ বাংলাদেশী টিচার্স এসোসিয়েশন ইউকে”। তাতে মাহবুব হোসেন সমর্থন করেন এবং উপস্থিত সকল সদস্য সর্বসম্মতিক্রমে এই মোশনের পক্ষে সমর্থন জ্ঞাপন করেন। তাই উক্ত সভায় বাংলাদেশী টিচার্স এসোসিয়েশন ইউকে (BTA) এখন থেকে “ব্রিটিশ বাংলাদেশ টিচার্স এসোসিয়েশন UK” BBTA হিসাবে নামকরণ করা হবে বলে সভাপতি মোহাম্মদ আবু হোসেন ঘোষণা দেন।

এখানে উল্লেখ্য যে বিটিএ এবার তাদের একটি অত্যন্ত আকর্ষণীয় ‘IMPACT’ নামে একটি পাবলিকেশন প্রকাশ করে। যাতে রয়েছে শিক্ষকদের অত্যন্ত মূল্যবান ও উন্নত মানের রচনা, কবিতা এবং বিটিএ কয়েক বছরের কার্যবিবরণী। IMPACT বিভিন্ন দিক নিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন মাহবুব হোসেন।‌

গত ১৫ জুলাই বি টি এ একটি ব্যাটমিন্টন টুর্নামেন্টে আয়োজন করে। চারটি দলের মধ্যে তুমুল প্রতিযোগিতার পর আব্দুল মুক্তাদির এবং মিসবাহ আহমেদ এর দল চ্যাম্পিয়ন হয়। এবং রানার্সআপ হন আশিদ আলী ও আবু হোসেনের দল। সভার এক পর্যায়ে নবনির্বাচিত সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মুক্তাদির এর পরিচালনায় ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন উপস্থিত অতিথিবৃন্দ।
ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন আব্দুল মোক্তাদীর এবং মিসবাহ আহমেদকে পুরস্কার প্রদান করেন ডেপুটি হাই কমিশনার জাহিদুল ইসলাম ও রানার্স আপ আশিদ আলী এবং আবু হোসেনকে পুরস্কার বিতরণ করেন দেওয়ান গৌস সুলতান।

মধ্যাহ্ন ভোজের ফাঁকে প্রিন্সিপাল আসিদ আলী লন্ডন এন্টারপ্রাইজড একাডেমী সম্বন্ধে বিস্তারিত তথ্য উপস্থিত দর্শক শ্রোতাদের মধ্যে উপস্থাপন করেন।

নির্বাচন কমিশনে কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন দেওয়ান গৌস সুলতান এবং তার সহযোগী কমিশনার ইকবাল হোসেন এবং রেহানা রহমান। নির্বাচনে একটি মাত্র প্যানেল থাকায় কোন প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছিল না। তাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচনে নির্বাচিত হন ;

সভাপতি: মোঃ আবু হোসেন, সিনিয়র সহ-সভাপতি: মমিতুর রাজা চৌধুরী, সহ-সভাপতি: মজিবুল হক মনি, সাধারণ সম্পাদক: সিরাজুল বাসিত চৌধুরী, কোষাধ্যক্ষ: মিসবাহ উদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সম্পাদক: ডক্টর রোয়াব উদ্দিন, সহ-সম্পাদক: কানিজ আশরাফি, সাংগঠনিক সম্পাদক: আব্দুল মুক্তাদির, সাংস্কৃতিক সম্পাদক: মুনজেরিন রশিদ, প্রচার সম্পাদক: মোঃ শাহজাহান, কার্যকরী কমিটির কমিটির সদস্যরা হলেন মঞ্জুর রাজা চৌধুরী, মাহবুব হোসেন,
সাবিতা সামসাদ, শওকত মাহমুদ টিপু, হাসনা রহমান, রোকসানা গনি, মোঃ হাবিবুর রহমান
আনিসা মিয়া, শাহিন খান।

অনুষ্ঠান শেষে কালচারাল সেক্রেটারি মুনজেরিন রশিদ এর সঞ্চালনায় একটি মনোঙ্গ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে গান পরিবেশন করেন; হাসি রানী, অনামিকা মিঠু, ইফাত চৌধুরী, ররি ম্যাকলাউড, ইকবাল হোসেন । সওদা মুমীন তার লিখিত ফাতিমা আল বিহারী ‘ The mother of education’ পড়ে শুনান। তাছাড়া কবিতা আবৃত্তি করেন মিসবাহ আহমেদ, জাহাঙ্গীর খান, খালেদ চৌধুরী । মজিবুল হক মনি তার স্বরচিত কবিতা ‘এসাইলাম’ সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে।